এখন বুঝি দারুণ সময়

আজ কুয়েট লাইফের শেষ ক্লাস টেস্ট(হাই-ভোল্টেজ) দিয়ে আসলাম। বাকি থাকল দুটি ল্যাব কুইজ আর সেন্ট্রাল ভাইভা। কাল সুইস-গিয়ার কুইজ ও ভাইভা। গত ফেব্রুয়ারী থেকে হরতালের উৎসব চলছে। আজও যথারীতি হরতাল ছিল। তবে হরতালেও আমাদের ক্লাস চলছে। আর কয়েকদিন ক্লাস। তারপর ছাত্রজীবন মোটামুটি শেষ।

শেষের দিনগুলোতে এসে বেশ নস্টালজিক লাগছে।

কত তাড়াতাড়ি ৪ টি বছর শেষ হয়ে গেল। মনে পড়ে এইতো ১ মার্চ ২০০৯ আমাদের ওরিয়েন্টেশন হল। কত আশা, কত স্বপ্ন নিয়ে কুয়েটে এসেছিলাম। প্রথম দিকে বড় ভাইদের ভয়ে অস্থির হয়ে থাকতাম। প্রথম দিন ডাইনিং এ গিয়েই এক বড় ভাইয়ের ঝাড়ি খেয়েছিলাম। ভয়ে তার মুখের দিকে ভালভাবে তাকাতে পারিনি। টিটিরুমে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকেও ব্যাটের নাগাল পেতাম না। পেপারের কোনো পাতাই ঠিকমত পড়তে পারতাম না। বাধ্য হয়ে Daily Star পড়তাম। খেলার ফাঁকে ফাঁকে 9XM দিলেও মনের রাগ মনেই পুষে রাখতাম। তবে ভাল লাগত সেই কালচারাল প্রোগ্রামগুলো, নানা সংগঠন থেকে ওরিয়েন্টেশন আর কুয়েট ফিল্ম সোসাইটির মুভিগুলো।

এখন দিনকাল একদমই আলাদা। এখন রুমের বাইরে বের হলেই ২কে১২ এর সালাম । কেউ আর 9XM দেখে না। টিটিরুমে অনেকদিন ঢোকা হয় না। পত্রিকা সব অনলাইনেই পড়া হয়। কুয়েট কালচারার প্রোগ্রাম যে কি জিনিশ অনেক জুনিয়র তা জানেই না।

না আর এভাবে ভাবতে ইচ্ছা করছে না। এখনো মাস দুয়েক আছে ক্লিয়ারেন্স পর্যন্ত, এখনো কুয়েটেই আছি।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s