কেল্লা কাবাব

গত মঙ্গলবার গেলাম লালবাগ কেল্লা। সেই ২০০৬ সালে কলেজে ভর্তির পর একবার এসেছিলাম। তারপর এই এবার আসলাম। বেশ ভাল লাগল। আগের তুলনায় অনেক বেশি লোক আসে এখন। অনেক পরিষ্কার পরিচ্ছন্নও বটে। আর অনেকগুলো ইলেকট্রিক লাইট লাগানো হয়েছে বেশ কায়দা করে যাতে কেল্লা দেখায় ঠিক কেল্লার মত। শায়েস্তা খাঁ আমলের ব্যবহৃত জিনিসপত্র, সমরাস্ত্র দেখলাম। এরপর বেশ খানিকক্ষণ বসে মানুষজনকে পর্যবেক্ষণ করলাম। সবচেয়ে ভাল লাগল ছোট শিশুদের বাধঁণছাড়া ছুটতে দেখে। আজ অন্তত এক বেলার জন্য ওরা স্বাধীণ। আর এক শ্রেণীর মহিলাদের দেখলাম পরিবার-পরিজন নিয়ে এসেছেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সাথে নিয়ে এসেছেন মেয়েকে। কপোত-কপোতীরা তো সবসময়ই ছিল এবং থাকবে। তবে তারা এমনভাবে বসে ছিল যেন তাদেরদ বেডরুম। এদের দেখতে দেখতে বিকেলটা ভালই কাটল।

এর মাঝে এক মেয়ে ক্যামেরাবন্দী হওয়ার আগে একটু মুখ পালিশ করছিল। আমার চোখে চোখ পরতেই কেল্লা ফতে, লজ্জায় একদম লাল হয়ে সেই যে গুল্মের আড়াল হল তো হলই। যাক লজ্জা তাইলে আছে কারও কারও। একটু পর আরেকটা সাধাসিধা মেয়ে নজরে এল। এর ছোটবোন (একদম পিচ্চি) ওড়না হারিয়েছে। সেই সাধাসিধা মেয়েটাকে সত্যিই অসাধারণ লাগল। খানিকটা সময় বিভিন্নভাবে ওর কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করলাম। এদিকে ৫টা বাজতেই বাঁশি বাজানো শুরু হয়ে গেছে। আমি আর রাতুল চললাম মদিনা মিষ্টান্ন ভাণ্ডার এর দিকে।

বেলা যে পড়ে এল, জলকে চল।।

কোন কারকে কোন বিভক্তি?

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s