মনবার্তা

আগের চেয়ে অনেক বেশি বই পড়া শুরু করেছি আর ফেসবুক কমিয়ে দিয়েছি। প্রতিজ্ঞা নিয়েছি ডিসেম্বর মাসে ফেসবুকে প্রবেশ করব না। একান্ত প্রয়োজনীয়তা ছাড়া। গত আড়াই দিনে মাত্র একবার প্রবেশ করছি একটা গ্রুপে।

এ মাসের শেষে বিসিএস পরীক্ষা। এবারের স্লোগান- মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন।

এ বছরে ১০টি বই পড়ার লক্ষ্য স্থির করেছিলাম। মাসখানেক আগেই লক্ষ্য অর্জন করতে পেরেছি।

বইগুলো হলঃ

১। দ্য আলকেমিস্ট

২। যদ্যপি আমার গুরু

৩। সিদ্ধার্থ

৪। চিলেকোঠার সেপাই

৫। কাইট রানার

৬। ওয়ান ইন্ডিয়ান গার্ল

৭। প্রাগতৈহাসিক

৮। ট্রেন টু পাকিস্তান

৯। দ্য মঙ্ক হু সোল্ড হিস ফেরারি

১০। অরিজিন

Advertisements

ইয়াক ইয়াক

আজ বড় অলস সময় কাটছে। হাতে যে কাজ নেই তা নয়। কিন্তু স্থান, কাল ও পাত্রভেদে সব কাজ করতে হয় বলে অলস সময় কাটাতে হচ্ছে।

গত কয়েকদিন ধরে নারায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়ের টেনিদা পড়ছিলাম। প্রথমবার পড়েছিলাম ক্লাস নাইনে থাকতে। অভিজিতের সুন্দর বইখানি ধার করে এনেছিলাম। আমার কাছ থেকে নিয়েছিল শাওন। তারপর তা আর মালিকের কাছে ফিরেছে কিনা কে জানে ।

কিন্ডল কেনার পর থেকেই নতুন উদ্যমে বই পড়া শুরু করলাম। প্রথমে অনেকগুলো ইংরেজি বই পড়লাম। কিন্তু বাংলা না পড়লে যে পেটের ভাত হজম হতে চায় না।

অনেক খোঁজাখুঁজির পর কিছু বাংলা বই পেলাম। সাথে সেই পুরানো টেনিদা। আহ, কি সুমধুর সেই স্মৃতি। এত নির্ভেজাল জীবন আর আনন্দ আর কোথায় পাব।

ইউটিউবে দেখলাম টেনিদা কার্টুনও আছে। দেখলাম কয়েক পর্ব। একবারে খারাপ না। ভয়েস খুব ভাল লেগেছে।

কোন মানবতা নয়

খুশবন্ত সিং এর লেখা “এ ট্রেন টু পাকিস্তান” পড়লাম। বাঙ্গালী হওয়ার কারণে বাংলায় হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা সম্পর্কে ধারণা ছিল। বেশি কিছু জানা হয়নি কখনো। বাংলার সাথে সাথে যে পাঞ্জাবও দুই ভাগে ভাগ হয়েছে তা জানা ছিল না।

নিজের ভিটে মাটি ত্যাগ করে নতুন করে জীবন শুরু করা অনেক কঠিন। আর তার সাথে মৃত্যুর হাতছানি। শুধু আলাদা ধর্মে জন্মের জন্য কেউ কারও দুশমন হয়ে যায় তা ভাবতেই পারি না। হিংসা আর গুজব যে মানুষের কত বড় ক্ষতি করতে পারে তার জ্বলন্ত উদাহরণ ভারত-পাকিস্তানের দাঙ্গা।

অতিপ্রাকৃত প্রকৃতি

হয়তো ওই চাঁদ আর এই পৃথিবীর ইতিহাস আছে। কিন্তু যে ধারাবাহিক অন্ধকার মাতৃগর্ভ হইতে সংগ্রহ করিয়া দেহের অভ্যন্তরে লুকাইয়া ভিখু ও পাঁচী পৃথিবীতে আসিয়াছিল এবং যে অন্ধকার তাহারা সন্তানের মাংসল আবেষ্টনীর মধ্যে গোপন রাখিয়া যাইবে তাহা প্রাগৈতিহাসিক, পৃথিবীর আলো আজ পর্যন্ত তাহার নাগাল পায় নাই, কোনোদিন পাইবেও না।

মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়. প্রাগৈতিহাসিক

রিপুকে পরিত্যাগ করে মানুষ বাঁচতে পারে না। পারলেও তাকে বেঁচে থাকা বলে না। জানিনা ঈশ্বর কাউকে কিছু উপহার দিয়ে তা ব্যবহার করতে বারণ করবেন কিনা। আমার মন কেন যেন সায় দেয় না।

আজ পর্যন্ত যারা মনের সাথে জোর করে প্রকৃতির বিপরীতে গেছেন, তারাই জন্ম দিয়েছেন লজ্জার ইতিহাস।

নারিকেল পাতার ঘড়ি

আমাদের গ্রামের বাড়িতে বেশ কিছু নারিকেল গাছ আছে । আমি ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছি। একবার প্রচন্ড এক তুফানে আমাদের গোয়াল ঘরের চালা উড়ে গিয়ে আটকালো বাড়ির মাঝে এক নারিকেল গাছের মাথায়।

মাঝে মাঝে নারিকেল গাছের পাতা কাটা হত। সেদিন যেন উৎসব এর আমেজ এসে যেত বাড়িতে। সবাই মিলে কাজে লেগে যেত। কেউ পাতাগুলো কান্ড থেকে আলাদা করছে, কেউ কান্ডটা কাটছে ছোট করে, আবার কেউ সেগুলো চিকন শলাকা তৈরী করছে। সেগুলো দিয়ে তৈরী হত ঝাড়ু।

আর আমরা তৈরী করতাম নারকেল পাতার বাঁশি, হাতঘড়ি ও চশমা। বাঁশিগুলো হতো চোঙ্গার মত। মেয়েরা কলার পাতা চিকন করে ছিঁড়ে তৈরী করত চুল। আমের পুরানো কোয়া দিয়েও সুন্দর বাঁশি তৈর করা যেত।

সঙ্কটাপন্ন স্বপ্ন

এক সময় একটা কথা শুনেছিলাম। কার কাছে শুনেছিলাম মনে নেই।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের স্বপ্নগুলো মরে যেতে থাকে।

জানিনা কথাটা কতটুকু ঠিক বা বেঠিক।

বইপড়ায় আলসেমি

একটা বদ অভ্যাস হয়ে যাচ্ছে। একটা বই শেষ না করেই আরেকটা বই শুরু করছি। এভাবে প্রায় ৭-৮ টা বই জমে গেছে। এবার শেষ করতেই হবে। তাই একটা একটা করে আগাচ্ছি।

প্রথমে শুরু করলাম আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের লেখা চিলেকোঠার সেপাই দিয়ে। বইটির ৭০ ভাগ পড়ে রেখেছিলাম। ৬৯ এর গনঅভ্যুত্থান এর উপর লেখা। একই সাথে রাজধানী ও গ্রামের আবহ উঠে এসেছে স্বমহিমায়। আঞ্চলিক ভাষার ব্যবহার পুরো উপন্যাসকে করেছে জীবন্ত।

চিলেকোঠার সেপাই শেষ করে শুরু করলাম চেতন ভগতের ওয়ান ইন্ডিয়ান গার্ল। অন্যরকম কাহিনী। সমাজ ও পরিবারের কাছে লুকিয়ে ভালবাসার সন্ধান করে ফেরা এক মেয়ের গল্প।

তারপর শুরু করলাম আফগান আমেরিকান লেখন খালেদ হোসেনীর লেখা দ্যা কাইট রানার। ৫১ শতাংশ পড়া ছিল।আমার কাছে নতুন এক জগত। এর আগে আফগানিস্তান নিয়ে লেখা পড়া হয় নি। তাই একটু বেশি আগ্রহ কাজ করছিল। অসাধারণ পটভূমিতে লেখা উপন্যাসে ফুটে উঠেছে আফগানে ক্ষমতার পালাবদল আর তার সাথে মানুষের জীবনের রংবদল। আজ সাময়িকভাবে যা ভাল মনে হয়, তা আগামীতে যে কি বয়ে নিয়ে আসবে তার কোন ঠিক নেই। অবশেষে গতকাল সন্ধ্যায় শেষ দিলাম।

আরো বেশ কয়েকটি তালিকায় আছে।

১। পঞ্চতন্ত্র – সৈয়দ মুজতবা আলী

২। দিবারাত্রির কাব্য – মানিক বন্দোপাধ্যায়

৩। হ্যারি পটার এন্ড দ্যা সর্সারার্স স্টোন – জে কে রাউলিং

৪। দ্যা উইংস অফ ফায়ার – এপিজে আবুল কালাম আজাদ

৫। ছোট গল্পসমগ্র – তলস্তয়